ওয়াকফে জাদীদ

মজলিস আনসারুল্লাহ্র সদস্যরা যাতে ওয়াকফে জাদীদের আর্থিক কুরবানী ও অন্যান্য কর্মসূচীতে অংশগ্রহণ করেন সে জন্য কায়েদ ওয়াকফে জাদীদ তাদেরকে উদ্ধুদ্ধ করবেন।


দায়িত্ব ও কর্তব্য: 
এই প্রকল্পের প্রাথমিক উদ্দেশ্য ছিল গ্রামাঞ্চলে বসবাসকারী সদস্যদের ধর্মীয় তালীম ও তরবিয়তের ব্যবস্থা করা। দ্বিতীয় উদ্দেশ্য ছিল দেশের হিন্দু জনগোষ্ঠীর কাছে ইসলামের বাণী পৌঁছে দেওয়া। আজ, আল্লাহ্ তা’লার রহমতে, এটি এখন একটি আন্তর্জাতিক পরিকল্পনা, যেখানে প্রতিটি সদস্য পুরুষ বা মহিলা, শিশু, কিশোর, যুবা বা বৃদ্ধ সবাইকে অংশ গ্রহণের জন্য উৎসাহিত করা হয়।

হযরত মুসলেহ্ মাওউদ (রা:) এই বরকতময় তাহরীকের গুরুত্ব বর্ণনা করে বলেন, “এই কাজ আল্লাহ্ তা’লার এবং এটি অবশ্যই পূর্ণ হবেই হবে। আমার হৃদয়ে যেহেতু আল্লাহ তায়ালা এই তাহরীকের উদ্রেক ঘটিয়েছেন তাই আমাকে যদি আমার বাড়িও বিক্রি করতে হয়, কাপড় বিক্রি করতে হয়, তবুও আমি এই কর্তব্য পালন করব। জা’মাতের একজন সদস্যও যদি আমার সাথে না আসে আল্লাহ্ তা’লা তাদেরকে পৃথক করে দিবেন এবং আমার সাহায্যের জন্য ফেরেস্তাদেরকে আকাশ থেকে পাঠিয়ে দিবেন”(জুমআর খোতবা, ৫ জানুয়ারী ১৯৫৮)।

১। প্রত্যেক মজলিসের যয়ীম বা মুনতাজিম ওয়াকফে জাদীদ মুনতাজিম অর্থকে অনুরোধ করবেন যেন তারা পূর্ববর্তী বছর থেকে অ-অংশগ্রহণকারী আনসারের তালিকা সরবরাহ করে এবং এই বছর তাদের অংশ নিতে অনুপ্রাণিত করার চেষ্টা করে।
২। প্রত্যেক মজলিসের উচিত সকল আনসারকে এই বরকতময় তাহরীকে অংশ নিতে উৎসাহিত করা। প্রতিটি নতুন আহমদী নাসেরকেও এই প্রকল্প সম্পর্কে সচেতন করতে হবে।
৩। পরিবারের প্রধান হিসাবে, প্রত্যেক নাসেরের অবশ্যই নিশ্চিত করা উচিত যে তাঁর পরিবারের সমস্ত সদস্যরা এই বরকতময় তাহরীকে অংশগ্রহণ করবে। এমনকি নবজাতকের পক্ষেও চাঁদা প্রদান করা উচিত।
৪। আনসার সদস্যগণকে গত বছরে তাদের দ্বারা আর্থিক কুরবানীর পরিমাণ বাড়ানোর জন্য উৎসাহিত করতে হবে।
৫। প্রত্যেক মজলিস পূর্ববর্তী বছরে অ-অংশগ্রহণকারী কতজন আনসার এ বছর চাঁদা প্রদানের ওয়াদা করেছেন তার তালিক প্রস্তুত করবেন এবং সারা বছর তাদের চাঁদা আদায়ে তৎপর থাকবেন।
৬। প্রত্যেক মজলিস ওয়াকফে জাদীদের চাঁদা আদায় ও অংশগ্রহণকারী সকল আনসার সদস্যের(নও-মোবাঈন-নাসের সহ) তালিকা এবং ২০২১ সালের ওয়াকফে জাদীদের চাঁদা ওয়াদাকারী আনসার সদস্যদের(নও-মোবাঈন-নাসের সহ) তালিকা প্রস্তুত করবে। এই দুইটি তালিকা পৃথকভাবে প্রতিটি ২(দুই) কপি প্রস্তুত করে ১(এক) কপি কেন্দ্রে প্রেরণ করবে। আর ১(এক) কপি মজলিসে সংরক্ষণ করবে।

বিশেষ দ্রষ্টব্য: ওয়াকফে জাদীদের আর্থিক বছর শুরু হয় ১ জানুয়ারী এবং শেষ হয় ৩১ ডিসেম্বর।

calculator-removebg-preview.png